সয়াবিন সম্পর্কে এই তথ্যগুলো আপনার জানা প্রয়োজন 

  • ওমেন্সকর্নার ডেস্ক 
  • জুলাই ২৫, ২০২০

সয়াবিন এমন একটি শস্য যা রান্নার কাজে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এটি উচ্চমাত্রার প্রোটিন এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের জন্য বেশ জনপ্রিয়। বহুবছর ধরেই সয়াবিন বিভিন্নভাবে খাওয়া হয়, এবং এর স্বাস্থ্যসুবিধা অনেক প্রশংসিত। তবে আপনি কি জানেন, আমাদের স্বাস্থ্যের উপর সয়াবিনের কিছু নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে? টাইমস অব ইন্ডিয়া সয়াবিন সম্পর্কে এমন পাঁচটি তথ্য প্রকাশ করেছে :

থাইরয়েড ফাংশনকে প্রভাবিত করে : সয়া গাইট্রোজেন সমৃদ্ধ, যা দেহে আয়োডিনের সঠিক শোষণ বন্ধ করতে পারে এবং থাইরয়েডের কার্যকারিতা প্রভাবিত করতে পারে। ফ্রন্টিয়ার্স অফ এন্ডোক্রিনোলজিতে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, জেনিস্টেইনের মতো আইসোফ্লাভোন থাইরয়েড হরমোনের প্রজন্মকে বাধা দিতে পারে। যদিও এটি শুধুমাত্র প্রাণির ক্ষেত্রে ঘটেছে। সায়েন্টিফিক রিপোর্টস নামক জার্নালে প্রকাশিত ১৮ টি সমীক্ষার মানবকেন্দ্রিক পর্যালোচনায় থাইরয়েডের কার্যক্রমে সয়াবিনের উল্লেখযোগ্য প্রভাব লক্ষ্য করা যায়নি। সয়াবিন থাইরয়েড-উত্তেজক হরমোনগুলোকে (টিএসএইচ) কিছুটা বাড়িয়ে এনেছিলো, তবে হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্তদের ক্ষেত্রে এর প্রভাব অস্পষ্ট থেকে যায়।

হজম স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে : প্রাণিদের উপরে করা গবেষণায় দেখা গেছে, সয়াবিন হজম স্বাস্থ্যের উপর নেতিবাচক প্রভাবের সাথে যুক্ত করেছে। সয়াবিনে অ্যাগ্রলুটিনিন রয়েছে, যা এক ধরণের অ্যান্টিনুট্রিয়েন্ট। যা দেহে স্বাস্থ্যগত সমস্যাগুলো তৈরি করতে সক্ষম। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মলিকুলার সায়েন্সেস-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সয়াবিনে থাকা অ্যান্টিন্ট্রিয়েন্টসগুলো অন্ত্রের ভালো ব্যাকটিরিয়ার স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। এভাবে পেটের মাধ্যমে খাবারের সঠিক উত্তরণকে প্রভাবিত করে এবং হজম স্বাস্থ্যকে ক্ষতিগ্রস্থ করে।

সয়াবিন তেল ওজন বৃদ্ধি করতে পারে : ক্ষতিকারক স্যাচুরেটেড ফ্যাটের বিকল্প হিসেবে সয়াবিন তেল ব্যবহৃত হয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তবে স্বাস্থ্য জার্নাল নিউট্রিয়েন্টস-এ প্রকাশিত নতুন গবেষণায় দেখা গেছে যে, সয়াবিন তেল নিজেই ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিডযুক্ত, যা ফ্যাট স্টোরেজ, ওজন বৃদ্ধি এবং প্রদাহের মতো বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। সয়াবিন তেলে ভাজা খাবার হলো ওজন বৃদ্ধির প্রধান কারণ।

পুরুষদের মধ্যে যৌন হরমোনকে প্রভাবিত করে : সয়াবিনে যথেষ্ট পরিমাণে ফাইটোয়েস্ট্রোজেন রয়েছে, যা পুরুষদের মধ্যে যৌন হরমোন প্রভাবিত করতে সক্ষম। যদিও জাতীয় গ্রন্থাগার অফ মেডিসিনে প্রকাশিত একটি গবেষণা টেস্টোস্টেরন জেনারেশনে সয়াবিনের কোনো নেতিবাচক প্রভাব আবিষ্কার করতে পারেনি। যেসব পুরুষ প্রতিদিন ৭০ গ্রাম সয়াবিন গ্রহণ করেন তাদের যৌন হরমোন ক্ষতি বা প্রভাবের ঝুঁকি বাড়ায় না। তবে, পুরুষদের অতিরিক্ত সয়াবিন খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

স্তনের ক্যান্সারের বিষয়ে প্রতিবেদনগুলো মেনে চলা : স্তন ক্যান্সারের জন্য অন্যান্য জিনগত কারণ ছাড়াও ইস্ট্রোজেনের বৃদ্ধি দায়ী। যেহেতু সয়াবিন শরীরে ইস্ট্রোজেনিক প্রভাবের জন্য দায়ী ‘আইসোফ্লাভোনস’ সমৃদ্ধ, তাই এটি স্তন ক্যান্সারে ভূমিকা রাখতে পারে। তবে, স্তন ক্যান্সার এবং সয়াবিন খাওয়ার মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক নিয়ে বৈজ্ঞানিক রিপোর্টগুলো পরস্পরবিরোধী। কমপ্লিমেন্টারি মেডিসিন রিসার্চে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, এশিয়ান নারীদের মধ্যে যারা বেশি সয়াবিন খান, তাদের ব্রেস্ট ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি ৩০% কম থাকে। একই জার্নালের আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, পশ্চিমা দেশগুলোর নারীদের উপর সয়াবিনের কোনো প্রভাব নেই। এমনকি আন্তর্জাতিক আণবিক বিজ্ঞান জার্নালে প্রকাশিত একটি প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে, সয়া দুধ ইঁদুরের মধ্যে টিউমার কোষের বৃদ্ধি দমন করতে সহায়ক হতে পারে।

 

Leave a Comment